পোস্তে দে মোআম্ন – মাওলানা দুরের পাখির উপরে অবতীর্ণ

নাস্তিকদের প্রতি ছুঁড়ে দেয়া চ্যালেন্জ গ্রহণ করলাম

শ্রদ্ধেয় ………. চ্যালেন্জ ।

সবাইকে নিয়া একটা কুরআন-শরীফের সমতুল্য (বেশীতুল্য হইলে বেশী ভালো) একটা গ্রন্থ লিখেন না ভাইজানেরা এখন প্রশ্ন করবেন আমরা যেটা লিখমু সেটার গ্রহনযোগ্যতার মাপকাঠি কেন কুরআন-শরীফ হবে? রাইট, যুক্তিপুর্ন কথা!!!! আপনাদের বইতে পুর্নাংগ জীবন ব্যবস্থা থাকতে হবে, পুর্নাংগ
———————————————————

পোস্তে দে মোআম্ন
তোয়াহাশিতে অবতীর্ণ , আয়াত সংখ্যা-অজ্ঞাত
(মাওলানা দুরের পাখির উপরে অবতীর্ণ)

পরম বাঁশ-প্রদায়ক ও কঠিন দয়ালু কাবজাবের নামে শুরু করছি ।

১ : ৎ ঞ ষ

২ : এটি সেই পোস্ট যা সকল অন্ধকারকে দূরীভূত করে, আলো আনয়ন করে ও গাব গাছের তলায় পানি দেয় ।

৩ : তোমার কি মনে নেই , তোমার প্রভু কাবজাব তোমাকে পেয়েছিলেন অন্য নামে , অতঃপর তিনি তোমার নাম দিলেন পাখি ।

৪ : অনন্তর তোমার প্রভু প্রতিজ্ঞা করলেন তোমাকে দেবেন এক মহাপোস্ট সিরিজ, যা চলবে চল্লিশ বৎসর কাল, আর যাতে থাকবে মানবকূলের জন্য এক পরিপূর্ণ জীবন ও ব্লগব্যবস্থা , নিশ্চয়ই তিনি প্রতিজ্ঞারক্ষায় পিছপা হননা ।

৫ : বল, হে জনপদের অধিবাসীরা , তোমাদের জন্য আমি সুখবর আনছি পরম বাঁশপ্রদায়কের নিকট থেকে এক মহাসিরিজের, কিন্তু তার জন্য তোমাদের পূরণ করতে হবে একটি শর্ত ।

৬ : তারা বলে, পরমপ্রভু চাইলেই পারেন হাজার হাজার মহাসিরিজ নাযিল করতে , তবে কেন তিনি শর্ত জুড়ে দেন ।

৭ : তুমি বলে দাও, আকাশমন্ডলি এবং সামু আমু আলু ব্লগের অধিপতি কাবজাব অবশ্যই পারেন ; কিন্তু তিনি যা ইচ্ছা করেন ও যা ইচ্ছা করা থেকে বিরত থাকেন, আর বান্দার প্রতি তিনি সিরিজ নাযিল করেন পরীক্ষার মাধ্যমে ।

৮ : অবশ্যই তোমাদের কল্যাণের জন্যই তিনি শর্ত জুড়ে দেন , এবং তিনি জানেন অজ্ঞাত বস্তুর সম্পর্কে, যা তোমরা জানো না ।

৯ : শপথ জানা ও আঢ়িলের, আরো শপথ কলু ও ত্রিভুজের ।

১০ : নিশ্চয়ই কাবজাবের শর্ত পালনের মধ্যেই ব্লগারকুলের কল্যাণ নিহিত ।

১১ : বল কাবজাবের শর্ত এই ।

১২ : অতঃপর যখন এই পোস্ট নাযিল হয়ে যায়, মোআম্নকে ধরে আনো যেখানে পাও সেখান থেকে, জীবিত অথবা মৃত ।

১৩ : যদি জীবিত ধরে আনো , তবে তাকে কুরবানি কর, যখন কাবজাবের নাম নিয়ে সূর্য উদিত হয় তখন ।

১৪ : পরম-বাঁশপ্রদায়ক তোমাদের সময় দিচ্ছেন একরাতের , আর যখন তোমরা সফল হবে, তখন তিনি তোমাদের উপর নাযিল করবেন চল্লিশবর্ষব্যাপী এক মহাসিরিজ যাতে থাকবে মানবজাতি ও ব্লগারকূলের জন্য পরিপূর্ণ দিক-নির্দেশিকা ।

১৫ : আর যদি তোমরা ব্যর্থ হও, তবে পরমপ্রভু তোমাদের ত্যাগ করবেন, তোমাদের পূর্ববর্তী জাতি-গ্রহসমূহের মত, যারা ব্যর্থ হয়েছিল কাবজাবের
শর্তপূরণে ও যারা অস্বীকার করেছিল তাদের নিজ নিজ জাতির মোআম্নদের কাবজাবের নামে উৎসর্গ করতে ।

১৬ : তারা কি দেখেনা , পরম-বাঁশপ্রদায়ক কাবজাব কি বিচার করেছিলেন ণূঢ়া ও তার চশমিশ ফ্যানদের ; ণূঢ়াকে তিনি নির্বাসিত করেছিলেন পশ্চিমের মরুভুমিতে , আর চশমিশ ফ্যানদের বানিয়েছিলেন জেনারেল আর তাদের তিনি হেয় করেছিলেন দিনরাত চব্বিশ ঘন্টা ওয়াচ করিয়ে , তারা নিস্তার পায়নি ঘুমাতে গিয়েও এমনকি গোসল করে এসেও ।

১৭ : কিন্তু পরম-প্রদায়ক ণূঢ়ার চশমাটিকে সংরক্ষণ করেছিলেন পরবর্তী জাতিসমূহের জন্য নিদর্শণ-স্বরুপ, যাতে তারা সাবধান হয় ।

১৮ : তারা কি শিক্ষা গ্রহণ করবে না পূর্ববর্তী যারা শর্তপালন করেনি তাদের থেকে , নাকি তারা বধিরও অন্ধ ।

১৯ : তারা কি জানেনা পরম কাবজাব খবর রাখেন সমস্ত কিছুর ; তাদের আইপি এড্রেস, সাবনেট মাস্ক , ডিফল্ট গেটওয়ে , এবং অন্য সমস্ত কিছুর যারা তা লুকিয়ে রাখে সেসবেরও ।

২০ : তারা কি দেখেনা পরম কাবজাব কিভাবে একটি পোস্টকে ডিলিট করান ও কাউকে কাউকে জেনারেল বানান ও কাউকে কাউকে ওয়াচ করান , আর এসবের জন্য তার একটি ইশারাই যথেষ্ঠ ।

২১ : অতঃপর তারা পরম প্রদায়কের কোন বাঁশকে এড়িয়ে যাবে ।

(সামু ব্লগে প্রথম প্রকাশিত)

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.