সূরাঃ কিংকর্তব্যবিমুঢ়

সূরাঃ কিংকর্তব্যবিমুঢ়
নাযিলঃ ধর্মান্ধদের বিতর্কের রাগ হইতে নাযিলকৃত।
আয়াতঃ ১৫
পড় তোমার বিবেচনা বোধ কাজে লাগিয়ে।

০১। হে নবী, তুমি মুহাম্মদের সেই সব উম্মতদের বলিয়া দাও, মুহাম্মদ প্রয়োজনে অভিসম্পাত করিয়াছেন, কিন্তু গালাগালি করেন নাই। তোমরা নাম মাত্র মুসলিম এবং ধর্মান্ধ, মূলত ধার্মিক হইতে পারো নাই।

০২। আরো বলিয়া দাও তাহাদের, যাহারা বিতর্কে পরাজিত হবার অবস্থানে আসিলে, বাবা মা উল্লেখ পূর্বক বিতর্ককারীকে গালমন্দ করিয়া থাকে; তাহাদের জন্যই বরাদ্দ রহিয়াছে কঠিন জাহান্নাম, যেখানে তাহাদের পুরুষত্ব ক্ষমতাকে করা হবে খুবই সামান্য কিন্তু সানি লিওনের যৌবন শক্তিকে করা হইবে অক্লান্ত।

০৩। তুমি ঘোষনা করিয়া দাও, মা সম্পর্ক এবং সম্বন্ধের কোন জাতি ভেদ নাই; সকল জাতিতেই তিনি মা। মায়ের আঁচল তলেই সন্তানের জান্নাত নিশ্চিত।

০৪। যাহারা তোমাকে নবী মানিতে সন্দেহ করে, তাহাদের বলিয়া দাও, পূর্ববর্তী নবীদেরকেও সন্দেহ করার মত মানুষের অভাব ছিল না, যেহেতু আমিও নবী, সেহেতু আমার ক্ষেত্রেও ব্যতিক্রম হইবে না।

০৫। তোমাকে যদি কেহ অলৌকিক মোজাজা প্রদর্শনের কথা বলে, তুমি তাদের স্পষ্ট বলিয়া দাও, মোজেজা দেখানোর মালিক আল্লাহ, আমি তো কেবল সত্য পথ প্রদর্শনকারী।

০৬। আর সুসংবাদ প্রদান কর সেই সব উম্মতদের, যাহারা যুক্তির বাহিরে সকল কিছুকে অযৌক্তিক বলিয়া বাতিল করে এবং নিজেদের অন্ধত্ব হইতে দূরে রাখে।

০৭। তাহাদের জন্যই রহিয়াছে জান্নাতে সর্বোচ্চ সম্মান এবং বিশেষ পুরস্কার স্বরুপ পাইবে সানি লিওনের চেহারা সদৃশ একজন অবর্ননীয় সুন্দরী হুরী, যাহার উজ্জলতায় অন্ধকার হইবে বিদূরিত, পোশাকের ভেতর দিয়ে বাহির হইবে নূরের জ্যোতি, বক্ষ হইবে গোলাকৃতি, গালদুটো হইবে তুলা সদৃশ কোমল, শরীর হইবে সীমাহীন মসৃন, ঠোঁট হইবে গোলাপের পাঁপড়ির ন্যায় রক্তবর্ন, যৌবন হইবে অনন্ত যৌবনা, ছহবত স্থায়িত্বে হইবে অক্লান্ত, প্রতিবারের সহবাসে মনে হইবে প্রথমবার, ফরজ গোসলের জন্য রহিয়াছে দুগ্ধের নহর, সরাবের জন্য রহিয়াছে সরাবান তাহুরার নদী, সাথে থাকিবে আরো ৭১ জন হুরী এবং বোনাস স্বরুপ থাকিবে গেলমান।

০৮। যাহারা বিচার বিবেচনা হীন এবং অন্ধের মত বিশ্বাস করে সুন্দরী নারী সদৃশ বোরাকে সপ্ত আসমান ভ্রমন, উড়ন্ত বান্দরের লেজে আগুন বহন এবং পিতার বীর্য ব্যতিত যীশু জন্ম, তাহারা এবং ভেড়ার পালের মধ্যে কোনই তফাত নাই।

০৯। তুমি চাহিলেও ইহাদের বেশির ভাগকেই সুপথ প্রদর্শন করাইতে পারিবে না, কারন ইহাদের নিজস্ব কোন জ্ঞান না থাকার দরুন, তাহাদের বিবেচনা বোধটাকে আমি রোহিত করিয়া দিয়াছি।

১০। যাহারা নাস্তিকদের লেখায় OMG শব্দ ব্যবহারে আবেগে আপ্লুত হইয়া তাহাদের উপহাস করিয়া থাকে, তাহাদের বলিয়া দাও, তোমরা যাহা মনে করিয়া উপহাস কর, তাহা কেবলই তোমাদের অনুমান এবং অজ্ঞতা। ধর্মান্ধদের OMG এবং সত্যান্বেসীদের OMG এর মধ্যে রহিয়াছে বিস্তর ফারাক।

১১। সত্যান্বেসীদের OMG মানে হল, “Oh My Google.” Oh My God নয়।

১২। তোমাকে অস্বীকার কারীদের বলিয়া দাও, ধর্মান্ধদের সঠিক পথ দেখানোর লক্ষ্যে আল্লাহ তাহার শেষ নবী মুহাম্মদ আগমনের ঘোষনাকে রহিত করিয়াছে এবং পূর্ববর্তী কিতাব বাতিল করিয়া নতুন কিতাব আনয়ন করিতেছে, যাহা সংরক্ষিত রহিয়াছে লওহে মাহফুজে।

১২। শপথ অজানা মহা বিশ্বের এবং অগনীত বিগ ব্যাং এর, যেখানে প্রতিনিয়ত তৈরি হচ্ছে নতুন মহাবিশ্ব এবং ধ্বংশও হচ্ছে। যেখানে তোমরাই কেবল প্রানী নহে, যাহাদের সাথে এখনো তোমাদের সম্পর্ক স্থাপন করাই নাই।

১৩। শপথ সেই সব ভিন গ্রহ বাসীদের, যাহারা মিলিয়ন বিলিয়ন আলোক বর্ষ দূরে অবস্থান করিতেছে এবং শপথ পৃথিবীর সেই সব প্রানীদের, যাহারা অক্সিজেন ব্যতিরেকেই জীবনকে ধারন করে এবং প্রসব ব্যতিরেকেই হয়ন জন্ম, তোমরাই প্রকৃত ধার্মিক, যাহারা অযুক্তিকে দূরে ঠেলিয়া সত্যকে আঁকড়ে ধরিয়াছো।

১৪। চিন্তা কর আদ ও সামুদ জাতির পরিনতি, যাহাদের তোমরা চোখেও দেখো নাই, এবং চিন্তা কর আফগানিস্থান এবং ইরাক রাষ্ট্র সম্বন্ধে। যাহাদের ধর্মান্ধতার দরুন আমি ধ্বংশ করিয়া দিয়াছি। কেননা, দুষ্ট গরুর চাইতে শূন্য গোয়াল উত্তম।

১৫। শিক্ষা নাও এসব ঘটনা হইতে এবং ফিরে আসো সত্য সুন্দর পথে, নিশ্চয় আল্লাহ পরম দয়ালু এবং পরম ক্ষমাশীল।

© S Pal

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.